জীববিজ্ঞানের বিকাশ

জীববিজ্ঞান (Biology)

Biology শব্দটি এসেছে গ্রিক শব্দ Bios – যার অর্থ জীবন এবং Logos – যার অর্থ জ্ঞান থেকে। ফরাসি প্রকৃতিবিদ জাঁ বাতিস্ত লামার্ক জীবিত বস্তু সংক্রান্ত অনেকগুলো শাস্ত্রের ধারক নাম হিসেবে Biology শব্দটি প্রচলন করেন।

জীবমন্ডল প্রধানত দুই ভাগে ভাগ করা হয়, একটা হচ্ছে উদ্ভিদকুল (Flora) এবং আরেকটা হচ্ছে প্রাণিকুল (Fauna)। জীবের ধরন অনুযায়ী জীববিজ্ঞানকে আবার দুটো শাখায় ভাগ করা হয়েছে, একটা হচ্ছে উদ্ভিদবিজ্ঞান (Botany) এবং আরেকটা হচ্ছে প্রাণিবিজ্ঞান (Zoology)।

 

জীবের নামকরণ (Nomenclature)

কোনো বিশেষ জীব বা জীবকুলের নির্দিষ্ট নামে শনাক্তকরণের পদ্ধতিকে বলা হয় নামকরণ। প্রতিটা জীব কোনো বিশেষ অঞ্চলের আঞ্চলিক ভাষা অনুসারে বিশেষ বিশেষ নামে পরিচিত। এরূপ আঞ্চলিক নামকরণ প্রথা বিশেষ জীবটির পুরো বিশ্বজুড়ে শনাক্ত করার ব্যাপারে সমস্যা তৈরি করে।

সুইডিশ বিজ্ঞানী ক্যারোলাস লিনিয়াস সর্বপ্রথম নামকরণের একটি প্রথা প্রবর্তন করেন যাতে এই ধরনের সমস্যা দূর হয়। একটি প্রাণী বা উদ্ভিদের দ্বিপদ নামকরণ প্রথা বের করার জন্য ক্যারোলাস লিনিয়াসকে শ্রেণিবিদ্যার জনক বলা হয়। তার বিখ্যাত গ্রন্থ গুলোর নামগুলো হচ্ছে- Systema Nature Species Plantarum, Genera Plantarum ইত্যাদি।

 

নামকরণের নিয়মাবলী

প্রত্যেক জীবের একটা বৈজ্ঞানিক নাম থাকবে এবং তার দুটো অংশ থাকবে। নামের প্রথম অংশের নাম হচ্ছে ওই জীবের গণ (Genus) এবং দ্বিতীয় অংশের নাম হচ্ছে ওই জীবের প্রজাতি (Species)

বৈজ্ঞানিক নামটি অবশ্যই ল্যাটিন শব্দের হতে হবে।

দ্বিপদ নামকরণ কম্পিউটারে ছাপা হলে সর্বদা ইটালিক ভাবে লিখতে হবে, অর্থাৎ ডান দিকে বাঁকা করে লিখতে হবে। দ্বিপদ নাম হাতে লিখলে ইংরেজি অক্ষর ব্যবহার করতে হবে এবং প্রতিটি অংশের নিচে একটা আলাদা আলাদা দাগ টানতে হবে। যেমন- Homo sapiens

গণ নামটি হবে বিশেষ্য এবং এর প্রথম অক্ষর অবশ্যই বড় হরফে লিখতে হবে। কিন্তু প্রজাতি নামটি হবে বিশেষণ যার অক্ষর সবগুলো ছোট হরফে লিখতে হবে। যেমন- Panthera tigris

আন্তর্জাতিক বিজ্ঞান বিষয়ক জার্নালে সর্বপ্রথম প্রকাশিত বৈজ্ঞানিক নামটি সবার কাছে স্বীকৃতি পাবে।

যে বিজ্ঞানী সর্বপ্রথম কোন জীবের বিজ্ঞানসম্মত নাম দিবেন তার নাম উক্ত জীবের দ্বিপদ নামের শেষে যুক্ত করতে হবে।

 

কিছু কনফিউশন!

শ্রেণিবিন্যাসে Species শব্দটি প্রথম ব্যবহার করেন : ক্যারোলাস লিনিয়াস

লিনিয়াস যে দেশের বিজ্ঞানী ছিলেন : সুইডেন

 

জীববিজ্ঞানের শাখা

Anatomy – শরীরস্থান বিদ্যা 

Physiology – শরীর বিদ্যা

Embryology – ভ্রূণ সম্পর্কিত বিদ্যা

Cytology – কলাস্থান সম্পর্কিত বিদ্যা

Histology – টিস্যু তত্ত্ব সম্পর্কিত বিদ্যা

Taxonomy – শ্রেণীবিন্যাস সম্পর্কিত বিদ্যা

Toxicology – বিষ সম্পর্কিত বিজ্ঞান

Palynology – পরাগরেণু সম্পর্কিত বিজ্ঞান

Faicology – শৈবাল সম্পর্কিত বিজ্ঞান

Mycology – ছত্রাক সম্পর্কিত বিজ্ঞান

Helminthology – কৃমি সম্পর্কিত বিদ্যা

Entomology – কীটপতঙ্গ সম্পর্কিত বিদ্যা

Herpetology – উভচর ও সরীসৃপ সম্পর্কিত বিদ্যা

Ornithology – পাখি সম্পর্কিত বিদ্যা

Ichthyology – মাছ সম্পর্কিত বিদ্যা 

Morphology – বাহ্যিক ও অভ্যন্তরীণ গঠন সম্পর্কিত বিদ্যা বা অঙ্গসংস্থানবিদ্যা

 

ফলিত জীববিজ্ঞান (Applied Biology)

এপিকালচার (Apiculture) – মৌমাছি পালন বিজ্ঞান 

এভিকালচার (Aviculture) – পাখি পালন বিজ্ঞান

পিসিকালচার (Pisciculture) – মৎস্য চাষ বিজ্ঞান

প্রন কালচার (Prawn Culture) – চিংড়ি মাছ বিষয়ক বিজ্ঞান

পার্ল কালচার (Pearl Culture) – মুক্তা চাষ বিষয়ক বিজ্ঞান

ফ্রগ কালচার (Frog Culture) – ব্যাঙ চাষ বিষয়ক বিজ্ঞান

Animal Husbandry – গবাদি পশুপালন বিদ্যা

পোল্ট্রি ফার্মিং (Paultry Farming) – হাঁস-মুরগী পালন বিদ্যা

সেরি কালচার (Sericulture) – রেশম চাষ বিজ্ঞান

Lac Culture – লাক্ষা চাষ বিজ্ঞান

হর্টিকালচার (Horticulture) – উদ্যান পালন বিজ্ঞান

Arboriculture – গাছ পালন বিদ্যা

Aquaculture – জলের মধ্যে গাছপালা উৎপাদন বিদ্যা 

পড়াশোনা সংক্রান্ত বিভিন্ন বিষয় নিয়ে শত শত ভিডিও ক্লাস বিনামূল্যে করতে জয়েন করুন আমাদের Youtube চ্যানেলে-

www.youtube.com/crushschool

ক্রাশ স্কুলের নোট গুলো পেতে চাইলে জয়েন করুন আমাদের ফেসবুক গ্রুপে-

www.facebook.com/groups/mycrushschool

Emtiaz Khan

A person who believes in simplicity. He encourages the people for smart education. He loves to write, design, teach & research about unknown information.

Comments

No comments yet. Why don’t you start the discussion?

Leave a Reply

Your email address will not be published.