স্যাটেলাইটের সুবিধা এবং অসুবিধা – Advantage & Disadvantage of Satellite

Satellite ব্যবহার করার ফলে আমরা যোগাযোগ ব্যবস্থাতে যেমন সুবিধা পাচ্ছি তেমনি কিছু অসুবিধাও পাচ্ছি। নিচে সেগুলো তুলে ধরা হলো-

সুবিধা

  • Satellite ব্যবহার করে একজন Sender তার data কে অনেকগুলো Receiver এর কাছে পাঠাতে পারে। Data পাঠানোর এই সিস্টেমকে Broadcast বলা হয়। Satellite এর মাধ্যমে একজন মানুষ একইসাথে লক্ষ লক্ষ মানুষকে বিভিন্ন তথ্য পাঠাতে পারে।
  • Optical Fiber ব্যবহারের চেয়ে Satellite ব্যবহার করার সুবিধা অনেক। কারন Optical Fiber ক্যাবলের দাম অনেক বেশি।
  • যেসব মানুষ চলাচল করে বা বিভিন্ন বাসে-গাড়িতে-প্লেনে থাকে তাদের সাথে সহজেই Satellite এর মাধ্যমে যোগাযোগ করা যায়।
  • পৃথিবীর একপ্রান্ত থেকে আরেকপ্রান্তে মোবাইল দিয়ে যোগাযোগ করা যায় Satellite ব্যবহার করে।
  • পৃথিবীতে অনেক বেশি পরিমান জায়গাকে নেটওয়ার্কের মাধ্যমে cover করা যায় satellite ব্যবহার করে।
  • গ্রামাঞ্চল কিংবা যেসব জায়গায় যোগাযোগ ব্যবস্থা অনেক কঠিন সেসব জায়গায় Satellite দিয়ে সহজেই যোগাযোগ করা যায়।
  • Satellite এর মাধ্যমে অনেক বেশি পরিমান তথ্য আমরা অনেক দূরে দ্রুত পাঠাতে পারি। অর্থাৎ Satellite এর Bandwidth অনেক বেশি, প্রায় 3 GHz এর কাছাকাছি।
  • Satellite ব্যবহার করে একজন মানুষকে (বা user) Data পাঠালে যতটুকু খরচ হবে, লক্ষ লক্ষ মানুষকে (বা user) data পাঠালে ঠিক একই পরিমান খরচ হবে। অর্থাৎ user যতই বাড়ানো হোক না কেনো, satellite এর কোনো খরচ বাড়বে না।
  • যেকোনো দেশ কিংবা কোম্পানি স্বাধীনভাবে Satellite বানাতে পারে এবং ব্যবহার করতে পারে।

 অসুবিধা

  • Satellite এর প্রধান সমস্যা হচ্ছে এর cost বা দাম। একটা Satellite কে আকাশে উঠাতে অনেক বেশি খরচ লাগে। 
  • খারাপ আবহাওয়াতে Satellite ঠিকমত কাজ করতে পারে না। Signal যখন Satellite এর কাছে যায় তখন খারাপ আবহাওয়া থাকা অবস্থা সেই Signal এর সাথে noise যুক্ত হয়। ফলে signal এর Amplitude কমে যায়।
  • যখন কোনো Satellite অকেজো হয়ে যায় তখন সেটাকে আর ঠিক করা হয় না। কারন Satellite কে ঠিক করার জন্য অনেক খরচ লাগে।  তাই অকেজো Satellite কে মহাকাশে ছেড়ে দেয়া হয়। পৃথিবীতে আর ফিরিয়ে আনা হয় না।
  • Satellite গুলো পৃথিবী থেকে অনেক দূরে থাকে বলে এক জায়গা থেকে আরেক জায়গায় Satellite এর মাধ্যমে Data পাঠাতে কিছুটা বেশি সময় লাগে।
  • Satellite কে আকাশে নির্দিষ্ট কক্ষপথে (বা orbit) উঠানোর পর সেটাকে সেই কক্ষপথে স্থির রাখার জন্য অনেক জটিল মেকানিক্যাল কাজ এবং ক্যালকুলেশনের কাজ করতে হয়। প্রতি মুহূর্তে Satellite কে নিয়ে হিসাব-নিকাশ করতে হয় সেটা কত স্প্রীডে ঘুরছে, কতটুকু জায়গা সরে যাচ্ছে এগুলো।
  • মহাকাশে Energy তৈরি করার জন্য সূর্য ছাড়া আর কোনো source নেই। তাই Satellite সূর্যকে ব্যবহার করে Solar Panel দ্বারা Electrical Energy তৈরি করে। কিন্তু Satellite এর solar panel গুলো সবসময় সূর্যের দিকে মুখ করে থাকে না। Satellite ঘুরতে ঘুরতে যখন পৃথিবীর ছায়াতে আসে তখন সূর্যের আলো পায় না solar panel গুলো। ফলে ব্যাটারি ব্যবহার করতে হয় satellite কে। যতদিন ব্যাটারি ঠিক থাকবে satellite ততদিন active থাকবে। কিন্তু ব্যাটারি একবার নষ্ট হয়ে গেলে Satellite সম্পূর্ণ বাতিল।


পড়াশোনা সংক্রান্ত বিভিন্ন বিষয় নিয়ে শত শত ভিডিও ক্লাস বিনামূল্যে করতে জয়েন করুন আমাদের Youtube চ্যানেলে-

www.youtube.com/crushschool

ক্রাশ স্কুলের নোট গুলো পেতে চাইলে জয়েন করুন আমাদের ফেসবুক গ্রুপে-

www.facebook.com/groups/mycrushschool

Emtiaz Khan

A person who believes in simplicity. He encourages the people for smart education. He loves to write, design, teach & research about unknown information.