স্যাটেলাইটের অবস্থান নির্ণয়ের কোণ – Angle to determine the position of the Satellite

একটা স্যাটেলাইটের অবস্থান ঠিকঠাকমত বের করার জন্য আমাদের তিনটি কোণের প্রয়োজন হয়। এরা হচ্ছে Inclination Angle, Elevation Angle এবং Look Angle.

Inclination Angle

একটা স্যাটেলাইটের Elliptical Orbit এর কথা ধরা যাক। এর এর দুটো axis থাকে, সবচেয়ে বড়টা major axis এবং ছোটটা minor axis.

আবার পৃথিবীর Equatorial Line বা বিষুবরেখার কথা ধরা যায়। এই রেখা পৃথিবীর একদম কেন্দ্র বরাবর থাকে।

এখানে i হচ্ছে আমাদের Inclination Angle.

Elevation Angle

ধরা যাক একটা স্যাটেলাইট পৃথিবীর কোনো একটা অঞ্চলকে coverage করছে। তাহলে সেই অঞ্চলকে আমরা বলে থাকি স্যাটেলাইটের footprint. এখন এই footprint এর একদম মাঝখানের point থেকে স্যাটেলাইট পর্যন্ত একটা লাইন কল্পনা করো-


এই লাইনকে বলা হয় central signal line (CSL). এখন এই লাইনটা পৃথিবীর উপর যে বিন্দুতে বসেছে অর্থাৎ footprint এর কেন্দ্রে, সেখানে একটা স্পর্শক বা tangent আঁকবো পৃথিবীর surface এর সাপেক্ষে।

Central Signal Line এবং Tangent রেখার মধ্যে যে কোণ তৈরি হবে সেটাকে Elevation Angle বলে। ছবিতে দেখো-

এখানে e হচ্ছে elevation angle.

Look Angle

পৃথিবীর surface থেকে কোনো স্যাটেলাইটের অবস্থান বের করার জন্য আমাদের look angle এর ব্যবহার করা হয়। কিংবা একটা স্যাটেলাইট থেকে কোনো ground station এর যেকোনো পয়েন্টকে বের করার জন্যও look angle ব্যবহার করা হয়।

স্যাটেলাইটের অবস্থান বের করার জন্য look angle ব্যবহার করা হয়। Look angle দুটো জিনিস নিয়ে গঠিত। একটা হচ্ছে Azimuth Angle, আরেকটা হচ্ছে Elevation Angle. এই দুটো angle নিয়ে এবার একটু জানা যাক।

ধরা যাক একটা স্যাটেলাইট আকাশে নির্দিষ্ট একটা orbit-এ ঘুরছে। আমাদের মহাবিশ্ব আমাদের চোখে ত্রিমাত্রিক। তাই আমাদের স্যাটেলাইটের অবস্থান তিনটা মাত্রা দিয়ে বের করতে হবে।

স্যাটেলাইটের অবস্থান বের করতে হলে আমরা East বা পূর্বদিককে x axis বরাবর ধরবো এবং North বা উত্তরদিককে y axis বরাবর ধরবো। এবার স্যাটেলাইট থেকে East-North plane বা ভূমির উপর একটা লম্ব টানবো। ধরা যাক এই লম্বটা East-North plane কে S বিন্দুতে ছেদ করেছে। এই ত্রিমাত্রিক অবস্থানে O হচ্ছে আমাদের মূলবিন্দু, সবশেষে O থেকে S এর দিকে একটা সরলরেখা টানি।

এখানে North side বা y axis এবং OS সরলরেখার মধ্যে যে কোণ তৈরি হয় সেটাকে Azimuth Angle বলে। অর্থাৎ Azimuth Angle থাকে East-North plane এর উপর, তাই Azimuth Angle হচ্ছে আনুভূমিক (বা Horizontal).

এবার মূলবিন্দু O থেকে স্যাটেলাইটের পর্যন্ত একটা সরলরেখা ধরে নেই OS’. এখানে S’ হচ্ছে স্যাটেলাইটের অবস্থান। ভালো করে খেয়াল করো, এখানে OS এবং OS’ এর মধ্যকার কোণকে বলা হয় Elevation Angle.

যেহেতু elevation angle টা স্যাটেলাইটের উচ্চতার সাথে তৈরি হয় তাই এই angle টা হচ্ছে একটা vertical angle. আমাদের look angle তৈরি হয় এই দুটো angle-কে নিয়েই। যদি মহাকাশে কোনো স্যাটেলাইটের নিখুঁত অবস্থান বের করতে চাই তবে Azimuth angle এবং Elevation angle এই দুটো নিখুঁতভাবে জানা লাগবে।

ক্রাশ স্কুলের নোট গুলো পেতে চাইলে জয়েন করুন আমাদের ফেসবুক গ্রুপে-

www.facebook.com/groups/mycrushschool

অতিথি লেখক হিসেবে আমাদেরকে আপনার লেখা পাঠাতে চাইলে মেইল করুন-

write@thecrushschool.com

Emtiaz Khan

A person who believes in simplicity. He encourages the people for smart education. He loves to write, design, teach & research about unknown information.