অ্যাস্ট্রোনমিক্যাল ইউনিট, পারসেক ও আলোক দিগন্ত (Astronomical Unit, Parsec & Light Horizon)

অ্যাস্ট্রোনমিক্যাল ইউনিট (Astronomical Unit – au)

পৃথিবী থেকে সূর্যের দূরত্ব যতটুকু, সেটাকে এক অ্যাস্ট্রোনমিক্যাল ইউনিট বলে। কিন্তু পৃথিবী থেকে সূর্যের দূরত্ব সব সময় একই থাকে না। কারণ পৃথিবী কখনোই সূর্যকে কেন্দ্র করে বৃত্তাকার পথে ঘোরে না, পৃথিবী উপবৃত্তাকার পথে ঘোরে। কেপলার সবার প্রথমে এই ধারণাটি দেন যে পৃথিবী উপবৃত্তাকার কক্ষপথে ঘোরে। কিন্তু এক বছরে পৃথিবী বিভিন্ন সময়ে সূর্য থেকে যে দূরত্বে অবস্থান করে তার গড় বা এভারেজ নিয়ে সূর্য থেকে পৃথিবীর একটা নির্দিষ্ট দূরত্ব পাওয়া যায় যাকে অ্যাস্ট্রোনমিক্যাল ইউনিট বলে। এই দূরত্বের মান হচ্ছে- 1.495 x 108 কিলোমিটার।

অ্যাস্ট্রোনমিক্যাল ইউনিট

পারসেক (Parsec)

এখন একটা কনসেপ্ট নিয়ে কাজ করি। যদি 1 a.u. দূরত্বটিকে কোনো বৃত্তের চাপ হিসেবে বসিয়ে 1″ (এক সেকেন্ড) পরিমাণ একটি কেন্দ্রীয় কোণ তৈরি করা হয়, তবে s = rθ এই সূত্র ব্যবহার করা যাবে। সূত্র থেকে r এর যে মানটা পাব, সেটিকে পারসেক (parsec) বলে। অর্থাৎ r হচ্ছে এখানে একটি ব্যাসার্ধ। এই পারসেক এর মান হচ্ছে-

1 parsec = 3.0857 x 1013 km

পারসেক

পারসেক এর মান হিসাব করে হাবল ধ্রুবক এর একটি মান পাওয়া যায় যার মান হচ্ছে- 50 থেকে 100 (kms-1 / Mpc)

এখানে Mpc মানে mega parsec.

যদি পারসেকের বিপরীত রাশি নিয়ে বলি তবে সেটা হবে H-1, যাকে Hubble’s time বা হাবল সময় বলে। এই সময়টি মহাবিশ্বের টোটাল বয়স কে নির্দেশ করে।

হাবল সময় অনুযায়ী মহাবিশ্বের বয়স 10 x 109 ~ 19 x 109 year পর্যন্ত। তবে বর্তমানে পৃথিবীর বয়স বের করা হয়েছে 13.8 x 109 year.

আলোক দিগন্ত (Light Horizon)

পৃথিবী থেকে সর্বোচ্চ যতোটুকু দূরে দেখা যায় যে মহাবিশ্ব সম্প্রসারিত হচ্ছে সেই দূরত্বকে বলা হয় light horizon বা আলোক দিগন্ত। অর্থাৎ নক্ষত্র গুলো ছড়িয়ে যাওয়ার বেগ প্রায় আলোর বেগের সমান হবে।

হাবলের সূত্র তৈরি হবার পর মহাবিশ্ব আসলে কিভাবে তৈরি হয়েছিল সেটার গবেষণা শুরু হয়। প্রথম “আদিম পরমাণু” নামক একটি পরমাণুর ধারণা দেন জর্জ ল্যামেটার নামক এক গবেষক। আদিম পরমাণু হচ্ছে মহাবিশ্বের একদম প্রথম পরমাণু যেটি সম্প্রসারিত হয়ে আজকের গ্রহ, উপগ্রহ সৃষ্টি হয়েছে এবং মহাকাশে এদেরকে ছড়িয়ে ছিটিয়ে দিয়েছে। অর্থাৎ তিনি বিগব্যাঙ ধারনাটি প্রথম প্রবর্তন করেন।

মনে রাখতে হবে স্টিফেন হকিং সর্বপ্রথম বিগব্যাঙ এর ধারণা দেন নি, জর্জ ল্যামেটার সর্বপ্রথম এর ধারণা দিয়েছিলেন।

ক্রাশ স্কুলের নোট গুলো পেতে চাইলে জয়েন করুন আমাদের ফেসবুক গ্রুপে-

www.facebook.com/groups/mycrushschool

অথিতি লেখক হিসেবে আমাদেরকে আপনার লেখা পাঠাতে চাইলে মেইল করুন-

write@thecrushschool.com

Emtiaz Khan

A person who believes in simplicity. He encourages the people for smart education. He loves to write, design, teach & research about unknown information.