পরমাণুর গঠন (Structure of Atom)

একটা পরমানুর মধ্যে তিনটি মূল জিনিস থাকে। এরা হচ্ছে ইলেকট্রন, প্রোটন এবং নিউট্রন। পরমানু নিয়ে জানার আগে এদের সম্পর্কে আমাদের ভালো করে জানতে হবে।

ইলেকট্রন

ইলেকট্রন হচ্ছে একটি কোয়ান্টাম বস্তু বা অতি ক্ষুদ্র একটি বস্তু। এটি পরমানুর কেন্দ্র বা নিউক্লিয়াসের চারদিকে নির্দিষ্ট অরবিটে ঘুরতে থাকে। ইলেকট্রনকে তরঙ্গধর্মী বা wave particle হিসেবে কল্পনা করা হয় এবং একে প্রকাশ করা হয় wave function হিসেবে। ইলেকট্রনের wave function আমাদের ধারনা দেয় পরমানুতে কোন কোন জায়গায় ইলেকট্রনকে পাওয়া সম্ভব।

একটি ইলেকট্রনের ভর me = 9.11 x 10-31 kg

এবং চার্জ Qe = - 1.6 x 10-19 C

নিউক্লিয়াস

পরমানুর কেন্দ্রে যে জায়গাটায় নিউট্রন এবং প্রোটন থাকে সেই জায়গাকে নিউক্লিয়াস বলে। তবে এখন পর্যন্ত কেউই জানেন না নিউক্লিয়াস দেখতে আসলে কেমন। কারন একটা পরমানুর তুলনায় নিউক্লিয়াস অত্যন্ত ছোট। নিউট্রন এবং প্রোটনকে নিউক্লিওন (Nucleon) বলে। ইলেকট্রনের মত এই দুটো নিউক্লিওন গুলোও তরঙ্গের মত আচরণ করে। কিন্তু তবুও এদেরকে particle বা কণা হিসেবে ধরা হয়। প্রোটন এবং নিউট্রন পরমানুর কেন্দ্রে খুব কম জায়গা দখল করে।

প্রোটন এবং নিউট্রনেরও ভর আছে। কিন্তু প্রোটনের চার্জ থাকলেও নিউট্রন চার্জহীন।

প্রোটনের ভর mp= 1.673 x 10-27 kg এবং চার্জ Qp = + 1.6 x 10-11 C

আবার নিউট্রনের ভর mn = 1.675 x 10-27 kg

নিউক্লিয়াসের ভর ইলেকট্রনের ভরের ১৮০০ গুন বেশি। তাই পরমানুর ভর বা atomic mass হিসাব করার সময় ইলেকট্রনের ভরকে neglect করা হয়। পরমানু wave particle (তরঙ্গ এবং কণা) হিসেবে আচরণ করে বলে এর ব্যাসার্ধ বা Radius সঠিকভাবে বের করা যায় না। তাই পরমানুর ব্যাসার্ধ বের করার জন্য নিউক্লিয়াসের কেন্দ্র থেকে ইলেকট্রন মেঘের প্রান্ত পর্যন্ত জায়গাকে ধরা হয়। সাধারনত হিসাবের সুবিধার জন্য নিউক্লিয়াসের radius এর মান ধরা হয়-

   r =(1.5 x 10-15 m) (number of nucleons)1/3

যদি নিউক্লিয়াসে প্রোটন এবং নিউট্রন সংখ্যা বাড়ে তবে পরমানুর ব্যাসার্ধ বাড়বে।

 

পারমাণবিক ভর (Atomic Mass)

প্রতিটা পরমানুতে একটা নির্দিষ্ট ভর থাকে। এই ভরকে বের করা হয় সেই পরমানুর ইলেকট্রন, প্রোটন এবং নিউট্রন সংখ্যা ব্যবহার করে। পরমানুর এই ভরকে Atomic Mass বলে। ইলেকট্রনের ভর অনেক নগণ্য বলে নিউক্লিয়াসে অবস্থিত প্রোটন এবং নিউট্রনের ভরের যোগফলকেই Atomic mass হিসেবে ধরা হয়। যেহেতু একটা পরমানুর ভর অনেক অনেক ছোট তাই এই ভরকে unified atomic mass unit দিয়ে প্রকাশ করা হয়। এটি বের করার হিসাব হচ্ছে-

   1 u (unified atomic mass unit) = 1.66054 x 10-27 kg

 যদি পরমানুর এই ক্ষুদ্র ভরের ওপর আইনস্টাইনের E = mc² সূত্র প্রয়োগ করা হয় তবে এই ক্ষুদ্র পরিমান ভর বিশাল একটা শক্তিতে পরিনত হবে। এভাবেই নিউক্লিয়ার পিজিক্স কাজ করে।

ক্রাশ স্কুলের নোট গুলো পেতে চাইলে জয়েন করুন আমাদের ফেসবুক গ্রুপে-

www.facebook.com/groups/mycrushschool

অতিথি লেখক হিসেবে আমাদেরকে আপনার লেখা পাঠাতে চাইলে মেইল করুন-

write@thecrushschool.com

Crush School

Emtiaz Khan

A person who believes in simplicity. He encourages the people for smart education. He loves to write, design, teach & research about unknown information.