বার্ড ফ্লু ও সোয়াইন ফ্লু (Bird Flu & Swine flu)

বার্ড ফ্লু

বার্ড ফ্লু-কে বলা হয় অ্যাভিয়ান ইনফ্লুয়েঞ্জা। Avian নামটি এসেছে পাখি থেকে এবং Flu-এর সাধারণ নাম ইনফ্লুয়েঞ্জা। অ্যাভিয়ান ইনফ্লুয়েঞ্জা ভাইরাস (বার্ড ফ্লু ভাইরাস) দ্বারা এই রোগ হয়। এই ভাইরাস পাখিকুলের মধ্যে অত্যন্ত ছোঁয়াচে আক্রান্ত পাখির (হাঁস, মুরগি ইত্যাদি) লালা, মল, নাকের রস ইত্যাদির সংস্পর্শে এলে সুস্থ হাঁস-মুরগি অতি সহজেই আক্রান্ত হয়ে পড়ে এবং তাড়াতাড়ি এদের মৃত্যুও ঘটে। তাই আক্রান্ত হবার সাথে সাথেই ঐ হাঁস-মুরগিকে পুড়িয়ে ফেলতে হবে বা মাটি চাপা দিতে হবে। এদের দ্বারা মানুষও আক্রান্ত হতে পারে। পাখিতে এই ভাইরাস এদের intestine-এ থাকে এবং বিষ্টা, লালা এর মাধ্যমে পরিবেশে ছড়ায় এবং অন্য পাখি সহজে আক্রান্ত হয়। আক্রান্ত পাখির সংস্পর্শে এসে মানুষও আক্রান্ত হতে পারে। যদি কোন মানুষের ইনফ্লুয়েঞ্জা হয় এবং সে যদি আক্রান্ত বার্ড ফ্লু পাখির সংস্পর্শে আসে তাহলে সহজেই বার্ড ফ্লু ভাইরাস দ্বারা আক্রান্ত হবে। মানবদেহের লক্ষণসমূহ হচ্ছে- জ্বর, কাশি, গলা খুশখুশ করা, চোখে infection এবং নিউমোনিয়া ইত্যাদি।

সোয়াইন ফ্লু

সোয়াইন ফ্লু বা সোয়াইন ইনফ্লুয়েঞ্জা শ্বাসতন্ত্রের প্রদাহজনিত একটি মারাত্মক রোগ। রোগটি সাধারণত শূকর প্রজাতির মধ্যে দেখা যায়। মানুষও এ রোগের ভাইরাসে আক্রান্ত হতে পারে। Swine Influenza Virus (SIV) সোয়াইন ফ্লু সৃষ্টি করে। ইনফ্লুয়েঞ্জা এ ভাইরাসের সাবটাইপ H1N1 এর কারণে এই রোগ ঘটে থাকে।

লক্ষণ : সোয়াইন ফ্লু আক্রান্ত ব্যক্তির কয়েকটি লক্ষণ দেখা যেতে পারে, যেমন- জ্বর, মাথা ব্যথা, বমিভাব, শ্বাসকষ্ট, শরীর ব্যথা, ডায়রিয়া, নাক দিয়ে পানি পড়া, কাশি, খাদ্যে অরুচি, বদহজম, গলার প্রদাহ এবং শরীরে অবশভাব। ২৪ ঘণ্টার মধ্যে আক্রান্ত ব্যক্তি প্রচণ্ড দুর্বল হয়ে যায়। ১৯১৮ সালে স্পেনে এই রোগ ধরা পড়ে এবং এতে প্রায় ৫ কোটি লোক মারা যায়।  সোয়াইন ফ্লু সংক্রমিত হয় হাঁচি বা কাশির মাধ্যমে সংক্রমিত দ্রব্যাদি স্পর্শ করলে। আক্রান্ত নাক, মুখ ও চোখ স্পর্শ করলে এই ভাইরাস এক দেশ থেকে অন্য দেশে ছড়িয়ে পড়তে পারে।

প্রতিকারের উপায়

  • হাচি/কাশির পর সঠিক উপায়ে টিশ্যু ব্যবহার করা ও সেটা সঠিক স্থানে ফেলা
  • আক্রান্ত ব্যক্তি থেকে দূরে থাকতে হবে
  • ভালভাবে হাত ধুতে হবে
  • মাস্ক ব্যবহার করতে হবে
  • জনপদে রোগের লক্ষণ দেখা দিলে বাড়িতে অবস্থান করতে হবে
  • অসুস্থ হলে নিকটস্থ চিকিৎসক বা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে যোগাযোগ করতে হবে।

পড়াশোনা সংক্রান্ত বিভিন্ন বিষয় নিয়ে শত শত ভিডিও ক্লাস বিনামূল্যে করতে জয়েন করুন আমাদের Youtube চ্যানেলে-

www.youtube.com/crushschool

ক্রাশ স্কুলের নোট গুলো পেতে চাইলে জয়েন করুন আমাদের ফেসবুক গ্রুপে-

www.facebook.com/groups/mycrushschool

Comments

No comments yet. Why don’t you start the discussion?

Leave a Reply

Your email address will not be published.