আবেশ প্রক্রিয়ায় চার্জিতকরণ (Charging by Induction)

কোনো পরিবাহীকে চার্জিতকরণ করতে হলে কিছু পদ্ধতি অনুসরণ করতে হয়। আমরা এখানে সেসব পদ্ধতি ধাপে ধাপে জানার চেষ্টা করবো।

 

পরিবাহীকে ধনাত্মক চার্জে চার্জিতকরণ

এক্ষেত্রে প্রথমে একটি পরিবাহী নেই। এবার একটি ইবোনাইট দণ্ডকে এক খণ্ড ফ্লানেল কাপড় দিয়ে ঘর্ষণ করে একে ঋণাত্মক চার্জে চার্জিত করি এবং পরিবাহীর এক প্রান্তের কাছে ধরি। পরিবাহীর মুক্ত ইলেকট্রনগুলো ইবোনাইটের ঋণাত্মক চার্জের দ্বারা বিকর্ষিত হয়ে অপর প্রান্তে চলে যাবে।

এবার পরিবাহীটিকে একটি পরিবাহী তার দ্বারা মাটির সঙ্গে যুক্ত করলে কিংবা হাত দিয়ে পরিবাহীটি স্পর্শ করলে মুক্ত ইলেকট্রনগুলো মাটিতে চলে যাবে। তারপর পরিবাহীটির সাথে ভূ-সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে ইবোনাইট দণ্ডটি সরিয়ে নিলে পরিবাহীতে ঐ প্রান্তের বদ্ধ ধনাত্মক চার্জগুলো পরিবাহীর সর্বত্র ছড়িয়ে পড়বে। এভাবে পরিবাহীটি ধনাত্মক চার্জে চার্জিত হবে।

 

পরিবাহীকে ঋণাত্মক চার্জে চার্জিতকরণ

পরিবাহীটিকে ঋণাত্মক চার্জে চার্জিত করার জন্য একটি কাচদণ্ড নিবো। একে রেশমী কাপড় দিয়ে ঘষে ধনাত্নক চার্জ যুক্ত করি এবং পরিবাহীর এক প্রান্তে ধরি। আবেশের ফলে পরিবাহীর সেই প্রান্তে ঋণাত্মক বদ্ধ চার্জ এবং অপর প্রান্তে ধনাত্মক মুক্ত চার্জ উৎপন্ন হবে।

এক্ষেত্রে কাচ দণ্ডটিকে অন্য স্থানে রেখে পরিবাহীটি হাত দিয়ে স্পর্শ করলে কিংবা পরিবাহী তার দিয়ে পরিবাহীকে মাটির সাথে যুক্ত করলে মাটি কিংবা হাত হতে ঋণাত্নক চার্জযুক্ত ইলেকট্রন এসে পরিবাহীর সেই প্রান্তের চার্জকে প্রশমিত করবে।

এবার পরিবাহীটিকে মাটি হতে বিচ্ছিন্ন করবো এবং কাচ দন্ডটিকে সরিয়ে নিবো। ফলে পরিবাহীর এক প্রান্তের বন্ধ ঋণাত্মক চার্জগুলো পরিবাহীর সব জায়গায় ছড়িয়ে পড়বে। অতএব পরিবাহীটি ঋণাত্মক চার্জে চার্জিত হবে।

তাই বলা যায়, একটা বস্তুকে যে চার্জে চার্জিত করতে হবে, তার বিপরীত ধর্মী চার্জের বস্তুকে সেই বস্তুর কাছে আনতে হবে।

পড়াশোনা সংক্রান্ত বিভিন্ন বিষয় নিয়ে শত শত ভিডিও ক্লাস বিনামূল্যে করতে জয়েন করুন আমাদের Youtube চ্যানেলে-

www.youtube.com/crushschool

ক্রাশ স্কুলের নোট গুলো পেতে চাইলে জয়েন করুন আমাদের ফেসবুক গ্রুপে-

www.facebook.com/groups/mycrushschool

Comments

No comments yet. Why don’t you start the discussion?

Leave a Reply

Your email address will not be published.