বৃত্তাকার গতি (Circular Motion)

কোনো বস্তুকণা যদি কোনো অক্ষ বা বিন্দুকে কেন্দ্র করে একটি বৃত্তাকার পথে গতিশীল থাকে, তবে বস্তুকণার এই গতিকে বৃত্তাকার গতি বলে। বৃত্তাকার গতি এক ধরনের ঘূর্ণন গতি এবং বস্তু যে অক্ষের চারদিকে ঘুরে তাকে ঘূর্ণন অক্ষ (axis of rotation) বলে ।

একটি ছোট পাথরকে একটি সুতা দিয়ে বেঁধে সুতার অপর প্রান্ত হাতে ধরে পাথরটিকে ঘুরাতে থাকলে দেখা যাবে যে, পাথরটি একটি বৃত্তাকার পথে ঘুরছে। সত্যি বলতে পাথরের প্রতিটি কণা এক একটি আলাদা বৃত্তাকার পথে ঘুরছে। চলন্ত গাড়ির চাকার গতি, বৈদ্যুতিক পাখার গতি, গ্রামোফোন রেকর্ড-এর গতি ইত্যাদি একই রকমের বৃত্তাকার গতি।

ব্যাসার্ধ ভেক্টর : বৃত্তাকার পথে ঘূর্ণনরত বস্তুর কেন্দ্র ও কণার মধ্যে সংযোগকারী সরলরেখাকে ব্যাসার্ধ ভেক্টর বলে। ছবি থেকে দেখো, কণাটির ব্যাসার্ধ ভেক্টর এর মান ব্যাসার্ধ = r

বৃত্তাকার গতির প্রকারভেদ 

বৃত্তাকার গতি দুই প্রকারের-

  • সম-বৃত্তাকার গতি (Uniform circular motion) ও
  • অসম বৃত্তাকার গতি (Non-uniform circular motion)

সম-বৃত্তাকার গতি : যদি কোনো বস্তুকণা কোনো বিন্দুকে কেন্দ্র করে বৃত্তাকার পথে সমান সময়ে সমান কোণ উৎপন্ন করে ঘুরতে থাকে, তবে সেই গতিকে সম-বৃত্তাকার গতি বলে।

অসম-বৃত্তাকার গতি : যদি কোনো বস্তুকণা কোনো বিন্দুকে কেন্দ্র করে বৃত্তাকার পথে নির্দিষ্ট সময়ে ভিন্ন ভিন্ন কোণ উৎপন্ন করে ঘুরতে থাকে, তবে সেই গতিকে অসম বৃত্তাকার গতি বলে।

পড়াশোনা সংক্রান্ত বিভিন্ন বিষয় নিয়ে শত শত ভিডিও ক্লাস বিনামূল্যে করতে জয়েন করুন আমাদের Youtube চ্যানেলে-

www.youtube.com/crushschool

ক্রাশ স্কুলের নোট গুলো পেতে চাইলে জয়েন করুন আমাদের ফেসবুক গ্রুপে-

www.facebook.com/groups/mycrushschool

Comments

No comments yet. Why don’t you start the discussion?

Leave a Reply

Your email address will not be published.