গ্রাউন্ডিং – Grounding

তুমি KFC রেস্টুরেন্টে খেতে যাচ্ছো। হঠাৎ তোমার এক বন্ধু তোমাকে ফোন করে জিজ্ঞেস করলো তুমি কোথায় আছো। তুমি উত্তর দিলে তুমি KFC তে যাচ্ছো। কিন্তু তোমার বন্ধু বুঝলো না তুমি ঠিক কোথায় আছো।

তুমি তাকে বললে তুমি KFC থেকে 10 মিটার সামনে আছো। তখন তোমার বন্ধু মোটামুটি ভালো একটা ধারনা পাবে তুমি ঠিক কোথায় আছো। তুমি এখানে KFC কে রেফারেন্স হিসেবে ধরে নিজের অবস্থান নিশ্চিত করছো।

আবার ধরো তুমি আইফেল টাওয়ারের একদম উপরে উঠে গেলে। তোমাকে তখন তোমার বন্ধু জিজ্ঞেস করলো তোমার উচ্চতা কত। তোমার উত্তর তখন কয়েক রকমের হতে পারে-

  • 5 feet 7 inch : তোমার পা থেকে মাথা পর্যন্ত
  • 980 feet : ভূমি থেকে তোমার জুতা পর্যন্ত
  • 985 feet 7 inch: ভূমি থেকে তোমার মাথা পর্যন্ত

অর্থাৎ তোমার actual কিংবা ideal কোনো উচ্চতা নেই। তুমি এখানেও রেফারেন্স ব্যবহার করে উত্তরগুলো দিচ্ছো। একটা রেফারেন্স হচ্ছে ভূমি, আরেকটা তোমার পায়ের তলা।

আমাদের বিশ্বে প্রতিটা জিনিসের পরিমাপ হয় রেফারেন্সের উপর ভিত্তি করে। পানি 100 ডিগ্রিতে বাষ্প হয়, রেফারেন্স হচ্ছে 0 ডিগ্রি এর সাপেক্ষে। আজকে অক্টোবরের ২১ তারিখ, রেফারেন্স হচ্ছে ১ তারিখের সাপেক্ষে। রেফারেন্স ছাড়া যেকোনো কিছুর হিসাব করা অর্থহীন।

যখন কোনো সার্কিটের মধ্যে কোনো কিছুর voltage মাপতে যাই তখন অনেকেই বলে থাকি ভোল্টেজের মান 7V, 540mV, 200kV ইত্যাদি। এসব মানগুলো হচ্ছে রেফারেন্সের সাপেক্ষে বলা। সার্কিটের ভেতর কোনো একটা জায়গায় আমাদের রেফারেন্স voltage আছে যার সাপেক্ষে আমাদের ভোল্টেজের মানগুলো 7V কিংবা 200kV বলতে পারি। সার্কিটের এই রেফারেন্স voltage কে গ্রাউন্ড কিংবা ground potential (GND) বলা হয়। গ্রাউন্ডের মান হচ্ছে শূন্য।

যেকোনো সার্কিটের GND কে সবসময় ভূমির সাথে কানেক্ট করে রাখা হয়। যেহেতু ভূমির voltage শূন্য, তাই GND এর মান শূন্য হয়।

আমরা কোনো সার্কিট বানানোর পর তার যেকোনো point কে গ্রাউন্ড (GND) বানাতে পারি সেই point কে মাটিতে কানেক্ট করে। কোনো সার্কিটে গ্রাউন্ড কানেকশনের symbol হচ্ছে-

যখন কোনো সার্কিটে ১টা DC source এর সাথে resistor কে কানেক্ট করা হয় তখন সেই DC source এর -ve টার্মিনালকেও GND হিসেবে ধরা হয়।

Grounding সিস্টেমে সার্কিটের প্রধান parts গুলো ভূমি বা মাটির সাথে কানেক্ট করা থাকে। ফলে সার্কিটের leakage current গুলো আবার সার্কিটের মধ্যেই ফিরে যায় এবং সার্কিটের পার্টস গুলো ঠিকঠাক মত কাজ করে। যখন কোনো সার্কিটে fault ঘটে তখন গ্রাউন্ডিং সিস্টেমের মাধ্যমে fault current ভূমিতে চলে যায়। ফলে সার্কিটের fault condition খুব কম সময়ের মধ্যে ঠিক হয়ে যায়।


ক্রাশ স্কুলের নোট গুলো পেতে চাইলে জয়েন করুন আমাদের ফেসবুক গ্রুপে-

www.facebook.com/groups/mycrushschool

অতিথি লেখক হিসেবে আমাদেরকে আপনার লেখা পাঠাতে চাইলে মেইল করুন-

write@thecrushschool.com

Emtiaz Khan

A person who believes in simplicity. He encourages the people for smart education. He loves to write, design, teach & research about unknown information.