টেলিস্কোপ কিভাবে কাজ করে? (How Telescope Works?)

একটা telescope কিভাবে কাজ করে সেটা জানতে হলে electromagnetic radiation নিয়ে জানা দরকার।

Light বা আলো হচ্ছে এক ধরনের electromagnetic radiation এবং একইসাথে এটি একটি শক্তি যেটা শূণ্যস্থানে তরঙ্গাকারে খুব দ্রুত চলাচল করতে পারে। আমরা তখনি একটা তারাকে দেখতে পারি যখন সেটা আলো তৈরি করে এবং সেই আলো আমাদের চোখে আসে।

আমরা সচরাচর যেসব আলো দেখি সেগুলো visible light বা দৃশ্যমান আলো। Visible light হচ্ছে এক ধরনের electromagnetic radiation. মজার ব্যাপার হলো আমাদের আশেপাশে এমনও অনেক বস্তু আছে যারা radiation নির্গত করে কিন্তু আমরা সেগুলো দেখি না। যেমন radio, television এর মধ্যে যে radiation এর মাধ্যমে সিগন্যাল যায় সেটা আমরা দেখি না। আবার ইলেকট্রিক হিটার বা ওভেন যে thermal radiation তৈরি করে সেটা আমরা চোখে দেখি না কিন্তু তার তাপ অনুভব করি।

যে স্কেলের মাধ্যমে wavelength এর উপর ভিত্তি করে বিভিন্ন electromagnetic radiation এর অবস্থান দেখানো হয় সেটাই electromagnetic spectrum. এই spectrum এর মধ্যে radio wave, infrared radiation, visible light, ultraviolet light, X-ray এবং gamma ray থাকে, যেগুলোর মধ্যে আমরা আমাদের চোখ দিয়ে কেবলমাত্র visible light বা দৃশ্যমান আলো দেখতে পাই। নিচে একটা Electromagnetic Spectrum দেখানো হলো-

আমরা মানুষেরা সাধারণত কোনো কিছু দেখি দৃশ্যমান আলোর প্রতিফলনে। কিন্তু বাঁদুড় ঘুটঘুটে অন্ধকারে দেখে ইনফ্রারেড বা অবলোহিত আলোর প্রতিফলনে। আবার ডাক্তাররা আমাদের শরীরের ভিতর পর্যন্ত দেখতে পারেন এক্স-রের প্রতিফলনে। এভাবে বিজ্ঞানীরা খুঁজে দেখলেন এই তিনটে radiation ছাড়াও কোনো একটা জিনিসকে আলোর আরো বিভিন্ন তরঙ্গদৈর্ঘ্য ব্যবহার করে বিভিন্নভাবে দেখা যায়। আর এভাবে একটা বস্তুর বিস্তারিত জানা যায় এসব বিভিন্ন wavelength এর আলো ব্যবহার করে। যেমন: একজন মানুষকে দৃশ্যমান আলোয় দেখলে চেনা যায়, এক্স-রে দিয়ে দেখলে শরীরের হাঁড়গোড় পর্যন্ত দেখা যায়, ইনফ্রারেড দিয়ে দেখলে তার শরীরের তাপমাত্রা পর্যন্ত দূর থেকে আঁচ করা যায়!

তাই বিজ্ঞানীরা হিসাব করে দেখলেন একটা বস্তুকে কয়েকভাবে দেখা যায়-

  • এক্স-রে দিয়ে,
  • দৃশ্যমান আলোয়,
  • হাইড্রোজেন আলফা তরঙ্গদৈর্ঘ্যে,
  • ইনফ্রারেড বা অবলোহিত আলোয়,
  • মাইক্রোওয়েভ দিয়ে, আর
  • রেডিও তরঙ্গ দিয়ে

সেজন্য দৃশ্যমান আলোর টেলিস্কোপের পাশাপাশি এরকম বিভিন্ন তরঙ্গদৈর্ঘ্যে দূরের বস্তুকে দেখার জন্য বিভিন্ন টেলিস্কোপ আবিষ্কার করা হয়। রেডিও তরঙ্গের টেলিস্কোপ শুধুমাত্র একটা ডিশ এন্টেনার মতো, যা রেডিও তরঙ্গের গ্রহ-নক্ষত্র-উপগ্রহ ইত্যাদি থেকে আসা তরঙ্গের উত্থান-পতনগুলো গ্রহণ করে আমাদেরকে এক প্রকার দেখার ক্ষমতা দেয়। তাই বলা যায় টেলিস্কোপ বিভিন্ন তরঙ্গদৈর্ঘ্যের আলোকে ব্যবহার করে বহুদূরের বস্তুকে আমাদের চোখে দেখাতে সক্ষম হয়।

ক্রাশ স্কুলের নোট গুলো পেতে চাইলে জয়েন করুন আমাদের ফেসবুক গ্রুপে-

www.facebook.com/groups/mycrushschool

অথিতি লেখক হিসেবে আমাদেরকে আপনার লেখা পাঠাতে চাইলে মেইল করুন-

write@thecrushschool.com

Emtiaz Khan

A person who believes in simplicity. He encourages the people for smart education. He loves to write, design, teach & research about unknown information.