পদার্থবিজ্ঞানে ক্ষমতা (Power in Physics)

কাজ সম্পাদনকারি কোনো ব্যক্তি বা উৎস (যেমন– ডায়নামো, ইঞ্জিন বা অন্য কোনো যন্ত্র) এর কাজ করার হারকে ক্ষমতা বলে। অর্থাৎ, একক সময়ে ব্যক্তি বা উৎসটি দ্বারা সম্পাদিত কাজের পরিমাণই হচ্ছে ক্ষমতা।

কোনো ব্যক্তি বা উৎস t সময়ে W পরিমাণ কাজ সম্পাদন করলে, ক্ষমতা-

P = W / t

ক্ষমতার দিক নেই, কাজেই ক্ষমতা একটি স্কেলার রাশি।

মাত্রা : মাত্রা ক্ষমতার মাত্রা = (কাজ / সময়) এর মাত্রা।

তাই, ক্ষমতা = কাজ / সময়

= (বল x সরণ) /সময়

= (ভর x ত্বরণ x সরণ) / সময় 

= (ভর x সরণ x সরণ) / (সময়2 x সময়)

= (ভর x সরণ2) / সময়3

so, [P] = ML2 / T3

একক : যেহেতু P = W / t

সুতরাং, কাজের একককে সময়ের একক দিয়ে ভাগ করলে ক্ষমতার একক পাওয়া যায়। ক্ষমতার একক ওয়াট (W)। যদি সময় t = 1s, এবং কাজ W = 1J হয় তাহলে p = 1 W হবে।

এক সেকেন্ডে এক জুল কাজ করার ক্ষমতাকে এক ওয়াট বলে।

1 W= =1 Js-1

বিভিন্ন প্রয়োজনে ওয়াটের হাজারগুণ বড় এক কিলোওয়াট (1kW) এবং দশ লক্ষ গুণ বড় এক মেগাওয়াট (1MW) ব্যবহার করা হয়।

1kW= 103W

1MW = 106W

অনেক সময় ইঞ্জিনের ক্ষমতাকে প্রকাশ করার জন্য অশ্বক্ষমতা (H.P) নামের একটি একক ব্যবহার করা হয়।

1 HP = 746 W

কোনো বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্রের ক্ষমতা 7 MW বলতে বুঝায় উক্ত কেন্দ্রে সরবরাহকৃত বিদ্যুৎ শক্তি দিয়ে প্রতি সেকেন্ডে 7×106 J কাজ করা যায়।

পড়াশোনা সংক্রান্ত বিভিন্ন বিষয় নিয়ে শত শত ভিডিও ক্লাস বিনামূল্যে করতে জয়েন করুন আমাদের Youtube চ্যানেলে-

www.youtube.com/c/CrushSchool

ক্রাশ স্কুলের নোট গুলো পেতে চাইলে জয়েন করুন আমাদের ফেসবুক গ্রুপে-

www.facebook.com/groups/mycrushschool

1 Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.