প্রোটিনের সেকেন্ডারী গঠন (Secondary Structure of Protein)

অ্যামিনো এসিডের কেমিক্যাল গঠনে একটা অ্যালকাইল (-R) গ্রুপ থাকে যাকে শাখা শিকল বলা হয়।

এই -R গ্রুপটা +ve / -ve হতে পারে, আবার Hydrophilic (পানিপ্রিয়) / hydrophobic (পানিবিদ্বেষী) -ও হতে পারে।

ধরা যাক আমাদের প্রোটিনের শিকলে প্রোলিন(P) এবং গ্লাইসিন(G) এই ২টা অ্যামিনো এসিড Hydrophilicমানে পানিকে ভালোবাসে, পানি দেখলে পানির কাছে চলে যায়। এরা একই ধর্মের বলে এরা নিজেরা চাইবে একে অপরের কাছে চলে আসতে। যেমন কোনো দেশে একটা বিশাল ইউনিভার্সিটিতে যদি দুজন বাঙ্গালি পড়ালেখা করে তবে এরা দুজন চাইবে দুজনের সাথে পরিচিত হতে, একসাথে থাকতে, একসাথে চলতে। অ্যামিনো এসিডের ব্যাপারটাও ঠিক এমনি।

আবার ধরো কিছু কিছু -R গ্রুপের চার্জ পজেটিভ এবং কিছু কিছুর চার্জ নেগেটিভ, তাই পজেটিভ -R গ্রুপ যুক্ত অ্যামিনো এসিড চাইবে নেগেটিভ -R গ্রুপ যুক্ত অ্যামিনো এসিডের কাছে যেতে, নেগেটিভ -R যুক্ত অ্যামিনো এসিড চাইবে পজেটিভের কাছে যেতে।

এভাবে অ্যামিনো এসিডের লম্বা শিকল কখনোই সোজা লম্বা হয়ে থাকতে পারে না, জায়গায় জায়গায় আকর্ষণের ফলে তারা কাছাকাছি চলে আসে, হিজিবিজি হিজিবিজি হয়ে যায়। আর তখন ৫ ধরনের আকর্ষন দেখা যায় অ্যামিনো এসিড গুলোর মাঝে-

-হাইড্রোজেন বন্ধন

-ভ্যান ডার ওয়ালস বন্ধন

-আয়নিক বন্ধন

-Hydrophilic Bond

-Hydrophobic Bond

অর্থাৎ এই ৫ ধরনের বন্ধন প্রোটিনের সেকেন্ডারী গঠন বানায়।

পজেটিভ ও নেগেটিভ -R যুক্ত অ্যামিনো এসিডগুলো পরস্পর আকর্ষণের ফলে স্প্রিং এর মত একটা গঠন বানায় যাকে আলফা-হেলিক্স (α-helix) গঠন বলা হয়।

আবার Hydrophobic অ্যামিনো এসিডগুলো একটার পর একটা বসে বসে আরেক ধরনের গঠন বানায় যাকে Beta Sheet (β-sheet) গঠন বলা হয়। এটাকে আমরা তীরের মত গঠন দিয়ে প্রকাশ করি।

তাই একটা লম্বা অ্যামিনো এসিডের শিকলের কোথাও কোথাও α-helix আবার কোথাও কোথাও β-sheet গঠন দেখা যায়। এদের নিয়ে বানানো গঠনটাই হলো প্রোটিনের সেকেন্ডারী গঠন।


ক্রাশ স্কুলের নোট গুলো পেতে চাইলে জয়েন করুন আমাদের ফেসবুক গ্রুপে-

www.facebook.com/groups/mycrushschool

অতিথি লেখক হিসেবে আমাদেরকে আপনার লেখা পাঠাতে চাইলে মেইল করুন-

write@thecrushschool.com

Emtiaz Khan

A person who believes in simplicity. He encourages the people for smart education. He loves to write, design, teach & research about unknown information.