ভোল্টেজের প্যারালাল কানেকশন – Voltage in Parallel Connection

একটা সার্কিটের কথা চিন্তা করো যেখানে একটা ব্যাটারি বা voltage source এর দুই প্রান্তে একটা Resistor R1 কানেক্ট করা-

ভোল্টেজের প্যারালাল কানেকশন

এই সার্কিটে Voltage source V থেকে I পরিমান কারেন্ট R1 resistor দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। যেহেতু এই সার্কিটে একটা মাত্র Resistor কানেক্ট করা I পরিমান কারেন্ট শুধুমাত্র একটা পথ দিয়েই সার্কিটে flow হবে। যদি আমরা আরো দুটো resistor R2 ও R3 কে parallel ভাবে সার্কিটে কানেক্ট করি তবে এই সার্কিটে Branch বা পথের সংখ্যা বেড়ে যাবে এবং I পরিমান কারেন্ট প্রত্যেকটা branch দিয়ে ভাগ হয়ে যাওয়ার সুযোগ পাবে। আবার Parallel Resistance এর সংখ্যা বাড়ার সাথে সাথে সার্কিটের overall resistance এর মান কমে যাবে। তবে I পরিমান কারেন্ট ভাগ হয়ে গেলেও source voltage V কখনোই ভাগ হবে নাহ। তাই R1, R2, R3 প্রত্যেকটা resistor এর দুই প্রান্তে source voltage V এর মান একই থাকবে।

ভোল্টেজের প্যারালাল কানেকশন

যদি R1, R2, R3 Resistor এর দুই প্রান্তে voltage drop কে V1, V2, V3 ধরি তবে-
   V = V1 = V2 = V3

তাহলে একটা সার্কিটের প্রতিটা elements কে voltage source এর সাথে parallel ভাবে কানেক্ট করা হয় তবে প্রত্যেক element এর দুই প্রান্তের voltage হবে সেই source voltage এর সমান।

Parallel ভাবে কানেক্ট করা Voltage কে ব্যবহার করা হয় বিভিন্ন কাজে, যেমন-
   1. বাসা-বাড়িতে বৈদ্যুতিক কানেকশনের জন্য
   2. বিভিন্ন power ring এর মধ্যে এই ব্যবস্থা ব্যবহার করা হয়
   3. বিয়ে বাড়ির লাইটিং করার কাজে voltage source কে লাইটগুলোর সাথে parallel ভাবে কানেক্ট করা হয়।

ক্রাশ স্কুলের নোট গুলো পেতে চাইলে জয়েন করুন আমাদের ফেসবুক গ্রুপে-

www.facebook.com/groups/mycrushschool

অতিথি লেখক হিসেবে আমাদেরকে আপনার লেখা পাঠাতে চাইলে মেইল করুন-

write@thecrushschool.com

Crush School

Emtiaz Khan

A person who believes in simplicity. He encourages the people for smart education. He loves to write, design, teach & research about unknown information.